1. deba99222@gmail.com : Deba Prashad : Deba Prashad
  2. admin@sahas24bd.com : sahas24bd : Ahsan Ullah
[১] সন্তানদের নিয়ে দেশের বাইরে যেতে পারবেন না জাপানি মা - sahas24bd
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:৫০ অপরাহ্ন
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:৫০ অপরাহ্ন

[১] সন্তানদের নিয়ে দেশের বাইরে যেতে পারবেন না জাপানি মা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ, ২০২৩

Tags:

[২] জাপানি বংশোদ্ভূত দুই শিশু দেশের বাইরে যেতে পারবে না বলে আদেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ফলে আপাতত নিজের দুই শিশুসন্তানকে নিয়ে নিজ দেশ জাপানে যেতে পারবেন না জাপানি মা নাকানো এরিকো।
একই সঙ্গে তিন মাসের মধ্যে ঢাকা জেলা জজ আদালতকে মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

[৩] দুই শিশুকে বিদেশে নিয়ে যেতে জাপানি মায়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের সাত সদস্যের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

[৪] গত ২৯ জানুয়ারি বাংলাদেশি বাবা ইমরান শরীফ ও জাপানি মা নাকানো এরিকোর দুই শিশুকে জাপানি মায়ের জিম্মায় রাখার নির্দেশ দেন ঢাকার পারিবারিক আদালত। তবে ছোট মেয়ে বাবার কাছেই রয়েছে। তাকে উদ্ধারে মা গুলশান থানায় জিডি করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

[৫] গত ২ ফেব্রুয়ারি তাকে আদালতে হাজির করা হয়। ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশীদের আদালত খাস কামরায় ছোট মেয়ে লায়লা লিনার বক্তব্য শোনেন। ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত একদিন বাবার কাছে এবং অন্যদিন মায়ের কাছে থাকার আদেশ দেন আদালত।

[৬] উল্লেখ্য, মা জাপানি চিকিৎসক নাকানো এরিকোর সঙ্গে বাংলাদেশি প্রকৌশলী ইমরান শরীফের বিয়ে হয় ২০০৮ সালে। দাম্পত্য কলহের জেরে ২০২০ সালের শুরুতে বিচ্ছেদের আবেদন করেন এরিকো। ১২ বছরের সংসারে তারা তিন কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। তারা হলো জেসমিন মালিকা, লাইলা লিনা ও সানিয়া হেনা। এরপর ইমরান স্কুলপড়ুয়া বড় দুই মেয়েকে নিয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন। ছোট মেয়ে জাপানে এরিকোর সঙ্গে থেকে যান।

[৭] এরপর ওই দুই মেয়েকে জিম্মায় পেতে করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে গতবছর জুলাই মাসে বাংলাদেশে আসেন এই জাপানি নারী। তিনি হাই কোর্টে রিট আবেদন করলে তাদের সমঝোতায় আসতে বলেন বিচারক। কিন্তু ওই দম্পতি সমঝোতায় না আসায় কয়েক মাস ধরে শুনানির পর হাই কোর্ট দুই সন্তানকে বাবার হেফাজতে রাখার সিদ্ধান্ত দেয়। পাশাপাশি মা যাতে সন্তানদের সাথে দেখা করতে পারেন, তা নিশ্চিত করতে বাবাকে খরচ দিতে বলা হয়।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved sahas24bd© 2019-2024
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It Hosting