1. admin@sahas24bd.com : sahas24bd : Ahsan Ullah
[১] সামান্য বৃষ্টিপাতে বশেমুরবিপ্রবির রাস্তাঘাটের বেহাল দশা ! - sahas24bd
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
শিক্ষার্থী আদনান তাসিন হত্যাকাণ্ডের বিচারহিনতার ৩ বছর ভাইরাল হয়নি, তাই বিচার পাইনা [১] নারী এশিয়া কাপে আজ মুখোমুখি বাংলাদেশ-পাকিস্তান [১] ভক্তদের পদচারণায় মুখর মণ্ডপ, মহাঅষ্টমী ও কুমারী পূজা আজ [১] যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা পেলেন পূজা চেরী, একই সময়ে যাচ্ছেন শাকিব খান [১] বাংলাদেশে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে টহল জোরদার [১] হিন্দু সম্প্রদায়কে দুর্গাপূজার শারদীয় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এমপি এনামুল হক [১] টেকসই উন্নয়নে সরকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে: রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ [১] শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু, আজ মহাসপ্তমী [১] বাংলাদেশে বাড়তে পারে বৃষ্টি কমবে তাপমাত্রা [১] ভোট ডাকাতির জন্যই ব্যালট চায় বিএনপি: ওবায়দুল কাদের [১] দুর্গাপূজা উপলক্ষে মাহমুদকাটী সার্বজনীন পুজা মন্দিরে বস্ত্র বিতরণ ও আলোচনা সভা

[১] সামান্য বৃষ্টিপাতে বশেমুরবিপ্রবির রাস্তাঘাটের বেহাল দশা !

সুমাইয়া আশা, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৩৬ বার পঠিত

Tags:

[২] রাবিশ আর পুরোনো ইট দিয়ে তৈরি করা রাস্তায় বৃষ্টি নামলে জন্ম নেয় শেওলা, তৈরি হয় নর্দমা, দেখা দেয় বন্যার প্রাদূর্ভাব। রাস্তার এমন বেহাল দশার কবলে শিক্ষার্থীরা রয়েছে দূর্বিপাকে, ঘটছে একাধিক দূর্ঘটনা। গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের(বশেমুরবিপ্রবি) অভ্যন্তরীণ রাস্তাঘাটের বেহাশ দশা। সামান্য বৃষ্টিপাতের সূচনা হলেই বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তাঘাটে বন্যার ন্যায় পূর্বাভাসের দেখা যায়। এতে করে শিক্ষার্থীরা ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছেন। এবং একাধিকবার অনেক শিক্ষার্থী বাইক দূর্ঘটনার স্বীকার হয়েছেন বলে জানা যায়।

[৩] সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের (বর্তমান ব্যবহৃত) রাস্তাটি পুরোনো ইট এবং রাবিশ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। যার কারনে সামান্য বৃষ্টি হলেই প্রধান ফটকের সামনে নর্দমার সৃষ্টি হয়। এমনকি প্রধান ফটক থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ প্রায় অধিকাংশ রাস্তা-ঘাটই পুরোনো ইট এবং রাবিশ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। যার কারনে পুরোনো ইটে বৃষ্টি পরলে সেখানে শেওলা জন্মে এবং রাস্তাঘাট পিচ্ছিল হয়ে যায়। এতে করে প্রায়শই শিক্ষার্থীরা দূর্ঘটনার সম্মুখীন হন বলে জানা যায়।

[৪] অন্যদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চলাচলের জন্যও শিক্ষার্থীদের ব্যবহৃত একই রাস্তা রাবিশ দিয়ে তৈরি করার কারনে গাড়ি চলাচল করার সময় সেখানে কাঁদাযুক্ত মাটি নর্দমায় পরিণত হয়। নর্দমাযুক্ত রাস্তা দিয়ে চলাচল করলে যেকোন সময় মারাত্মক দূর্ঘটনার ভয়ে শিক্ষার্থীরা পায়ে হেঁটে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে দ্বিধাবোধ করেন।

[৫] বাংলাদেশের অধিকাংশ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তাঘাট যেখানে অতি উন্নত সেখানে বশেমুরবিপ্রবির অবস্থা নিতান্তই নগন্য। এখানে নেই কোনো ঐতিহাসিক রাস্তা, যেটির মাধ্যমে পরিচিতি পাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতি। বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে যেসকল রাস্তা রয়েছে তাদের অধিকাংশ রাস্তাই বেশ কয়েক বছর পূর্বে পুরোনো ইট এবং রাবিশ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। যার ফলে বর্তমানে সামান্য বৃষ্টিপাত হলেই রাস্তায় শেওলা জন্ম নেয়। এমনকি অপরিকল্পিতভাবে তৈরি করা ইটের রাস্তার দু’ধারে গর্ত থাকায় বর্ষাকালের অধিকাংশ সময়ই এসব গর্তে পানি জমে থাকে। যেগুলো রোগজীবাণু সৃষ্টি করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

[৬] রাস্তাঘাটের এমন পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য ও সমুদ্র জীববিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রুদ্র দাশ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশের রাস্তা একটি। যার কারনে এই রাস্তা দিয়ে সকল শিক্ষার্থী এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন গুলো চলাচল করে। এখানে সামান্য বৃষ্টিপাত হলেই এই রাস্তা দিয়ে পায়ে হেঁটে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করা সম্ভব হয়না। কারন বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীন যানবাহনগুলো এমন ভাঙ্গা রাস্তা দিয়ে চলাচলের কারনে নর্দমার সৃষ্টি হয়ে যায়। অন্যদিকে পুরোনো ইট এবং রাবিশ দিয়ে তৈরি করা রাস্তায় বৃষ্টি হলে স্বাভাবতই সেখানে শেওলা জমে যায়। যার কারনে রাস্তা পিচ্ছল হয়ে যায়। রাস্তাঘাটের এমন বেহাল দশা আজকের নতুন না। কিন্তু দুঃখজনক হলেও এই রাস্তা দিয়ে প্রশাসন চলাফেরা করার পরেও তাদের চোঁখে এমন অস্বস্তিকর রাস্তাটি চোঁখে পরেনা।

[৭] এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী উজ্জ্বল মন্ডল কৃষ্ণময় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের এমন কয়েকটি রাস্তাঘাট আছে, যেগুলো দিয়ে হাঁটলে যেকোনো সময় বড় কোনো ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে৷ এমনকি ইতিপূর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে একাধিকবার বাইক দূর্ঘটনাও ঘটেছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি রাস্তা পাঁকা করা হয়েছে কিন্তু বর্তমানে প্রধান ফটক হিসেবে ব্যবহৃত রাস্তা, লাইব্রেরীতে প্রবেশের রাস্তা, একাডেমিক রাস্তা, মেয়েদের হল গেইটের রাস্তাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ রাস্তাই দূর্ঘটনাপ্রবন।

[৮] এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার এস. এম. এস্কান্দার আলী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের কাজ নির্মাধীন থাকার কারনে বর্তমানে ব্যবহৃত মন্দির গেইটের রাস্তাটি ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের কাজ শেষ হয়ে গেলে এই রাস্তাটি আর ব্যবহার করা হবেনা। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের মাষ্টারপ্ল্যান অনুযায়ী রাস্তাটি করা হয়নি। এটি মূলত ক্যাফেটেরিয়ার পেছনে তৈরি করার কথা ছিল। কিন্তু ক্যাফেটেরিয়া না হওয়ার কারনে সাময়িক সময়ের জন্য এই রাস্তাটি তৈরি করা হয়েছে। তবে বর্তমানে চলাচলের উপযোগী করার জন্য রাস্তায় কিছু রাবিশের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

[৯] বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরের অন্যান্য রাস্তার উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইতিমধ্যে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি রাস্তার উন্নয়ন করেছি তবে ইঞ্জিনিয়ারিং কিছু সমস্যার জন্য সকল রাস্তার কাজ শেষ করতে পারিনি। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল রাস্তার কাজ কিছুদিনের মধ্যে শুরু হবে এবং এটির জন্য কন্ট্রাকদারের সাথে কথা হয়েছে, তিনি খুব দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল রাস্তার কাজ করে দিবেন বলে জানান প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার এস. এম. এস্কান্দার আলী। সম্পাদনা : খুরশিদ রহমান

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved sahas24bd© 2019-2022
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It Hosting