1. deba99222@gmail.com : Deba Prashad : Deba Prashad
  2. admin@sahas24bd.com : sahas24bd : Ahsan Ullah
উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে ১০ ভুল ধারণা - sahas24bd
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:২৫ অপরাহ্ন
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:২৫ অপরাহ্ন

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে ১০ ভুল ধারণা

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

৩. উপসর্গ তো নেই, কেন চিকিৎসা নেব

আমার কোনো শারীরিক সমস্যা নেই, মাথাব্যথা বা ঘাড় ব্যথা নেই, মাথা ঘোরে না বা ঝিমঝিমও করে না। আমার উচ্চ রক্তচাপ থাকতেই পারে না। এটা কিন্তু ভুল ধারণা। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের কোনো উপসর্গ থাকে না। নিয়মিত রক্তচাপ মাপা ছাড়া শনাক্ত করার উপায় নেই।

৪. ঘাড়ে ব্যথা মানে রক্তচাপ বেশি

ঘাড়ে ব্যথা হলে কেউ কেউ মনে করেন, নিশ্চয়ই রক্তচাপ বেড়েছে। এই ধারণা অমূলক। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে রক্তচাপ বৃদ্ধির কোনো উপসর্গ বোঝা যায় না। তবে, রক্তচাপ খুব বেড়ে গেলে (১৮০/১২০ মিলিমিটার পারদের ওপরে উঠলে) দৃষ্টি ঝাপসা হওয়া, বুকে ব্যথা বা বুকে চাপ, শ্বাসকষ্ট, লালচে প্রস্রাব, নাক দিয়ে রক্ত পড়া, মাথাব্যথা, শরীরের অংশবিশেষের বা একাংশের দুর্বলতা কিংবা অবশ হওয়া এবং অন্তঃসত্ত্বা মায়ের খিঁচুনি হতে পারে।
অনেকের ধারণা, উচ্চ রক্তচাপ হলে ডিম, দুধ ও মাংস খাওয়া নিষেধ। এসব খাবার খেলে রক্তচাপ বাড়ে। এটা ঠিক নয়। লবণ খেলে রক্তচাপ বাড়ে বটে, কিন্তু দুধ ডিমের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। তবে উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়লে, হৃদ্‌রোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে ঘি, মাখন, ডালডা এবং এগুলো দিয়ে তৈরি খাবার, দুধের সর, ভাজা পোড়া খাবার, লাল মাংস যেমন গরু বা খাসির মাংস, ট্রান্সফ্যাটসমৃদ্ধ বেকারির খাবার, লবণ ও অধিক লবণজাত খাবার এবং কোমল পানীয় এড়িয়ে চলতে বলা হয়। সরবিহীন দুধ রোজই খাওয়া যায়। ডিম, মুরগির মাংস নিয়মিত খেতে কোনো মানা নেই।

৬. লবণ ভেজে খাওয়া যাবে

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে খাবারে বাড়তি লবণের ব্যবহারে বারণ। উচ্চ রক্তচাপের রোগীর দৈনিক এক চামচের বেশি লবণ খাওয়া ঠিক নয়। অনেকের ধারণা কাঁচা লবণ নিষেধ তো লবণ ভেজে বা টেলে খাওয়া যাবে। আসলে লবণ যেভাবেই খান, উচ্চ রক্তচাপ বাড়াবেই।

৭. তেঁতুল গুলে খেলে রক্তচাপ কমে

রক্তচাপের পরিমাণ বেশি দেখলে কেউ কেউ পানিতে তেঁতুল গুলে খান বা টক খান। এতে রক্তচাপ কমে না। বরং লবণ মিশিয়ে এসব খেলে রক্তচাপ আরও বেড়ে যেতে পারে। তার ওপর হতে পারে গ্যাস।

৮. রক্তচাপ স্বাভাবিক, ওষুধ কেন চলবে

বাড়িতে বা দোকানে গিয়ে রক্তচাপ মেপে দেখলেন স্বাভাবিক। একটু নিচের দিকেই। কেউ হয়তো বলল আপনি তবে কেন শুধু শুধু ওষুধ খাবেন? এটি গুরুতর ভুল। কোনো কারণে রক্তচাপ অস্বাভাবিকভাবে কমে না গেলে (৯০/৬০ মিমি পারদের কম) চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া উচ্চ রক্তচাপের ওষুধ বন্ধ করা ঠিক নয়। উচ্চ রক্তচাপের ওষুধ হঠাৎ বন্ধ করলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, এমনকি জীবন ঝুঁকিতেও পড়তে পারে।

৯. রক্তচাপ বাড়তি, তবে ওষুধ বাড়িয়ে খাবেন?

আবার উল্টোটাও হতে পারে। কাউকে দিয়ে রক্তচাপ মাপিয়ে দেখলেন একটু বাড়তির দিকে। অমনি নিজে নিজে ওষুধ বাড়িয়ে নিলেন, এক বেলার জায়গায় দুই বেলা খেয়ে নিলেন বা মাত্রা দ্বিগুণ করে নিলেন। এটাও ভুল। নানান কারণে একদিন রক্তচাপ বাড়তেই পারে। তাই বলে চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধের মাত্রা নিজে নিজে বাড়ানো ঠিক নয়।

১০. ওর ওষুধ খুব ভালো

উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়লে অনেকে চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়ে বন্ধু, স্বজন বা পরিবারের কারও ব্যবস্থাপত্র দেখে ওষুধ খান। অমুকের ওই ওষুধে নিয়ন্ত্রণ হয়েছে বলে আমার জন্যও এটি প্রযোজ্য, তা নাও হতে পারে। কোন ওষুধ আপনার জন্য প্রযোজ্য, তা অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে। আনুষঙ্গিক হাঁপানি, ডায়াবেটিস, হৃদ্‌রোগ বা অন্য কোনো রোগ থাকলে সে অনুযায়ীই হবে আপনার ওষুধের ধরন। সে জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই ওষুধ নির্বাচন করতে হবে।

ডা. শরদিন্দু শেখর রায়

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved sahas24bd© 2019-2024
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It Hosting